বৃহস্পতিবার ২১শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

নরসিংদীতে ফ্রি ফায়ার গেমে আসক্ত কিশোর শিক্ষার্থীরা

শুক্রবার, ২৮ মে ২০২১
799 ভিউ
নরসিংদীতে ফ্রি ফায়ার গেমে আসক্ত কিশোর শিক্ষার্থীরা
Spread the love
মোঃ সালাহউদ্দিন আহমেদ: নরসিংদীর বিভিন্ন উপজেলার পৌর এলাকা ও গ্রামে দেখা গেছে কিশোররা ইন্টারনেটে ফ্রি ফায়ার গেম নিয়ে পড়ে আছেন। যাদের বেশির ভাগই স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী। উঠতি বয়সের শিক্ষার্থীরা ও পুরো যুব সমাজ দিন দিন ফ্রি ফায়ার নামক গেমের নেশায় জড়িয়ে পড়েছে। যে সময় তাদের ব্যস্ত থাকার কথা নিয়মিত পড়ালেখাসহ শিক্ষা পাঠ গ্রহণ নিয়ে ও খেলার মাঠে ক্রীড়া চর্চার মধ্যে, সেখানে তারা ডিজিটাল তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে জড়িয়ে পড়ে নেশায় পরিণত করছেন। উঠতি বয়সের যুবকরা প্রতিনিয়ত অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিয়ে এসব গেইমে আসক্ত হচ্ছেন। এসব বিদেশী গেম থেকে শিক্ষার্থী বা তরুণ প্রজন্মকে ফিরিয়ে আনতে না পারলে বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা দেখছেন সচেতন মহল। একজন অসচ্ছল পরিবারের সন্তান ডায়মন্ড ও ইউসি কেনার টাকা যোগান দিতে জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপকর্মে। কোমল মতি শিশুদের ১০/২০ টাকা জমিয়ে যেখানে ক্রিকেট বল ফুটবল কেনার কথা, সেখানে তারা টাকা জমিয়ে রাখছে ইউসি/ ডায়মন্ড কেনার জন্য। ফ্রী ফায়ার গেমসে অনুরাগীরা জানান, প্রথমে তাদের কাছে ফ্রি ফায়ার গেমস ভালো লাগত না। কিছুদিন বন্ধুদের দেখাদেখি খেলতে গিয়ে এখন তারা আসক্ত হয়ে গেছেন। এখন গেমস না খেলে তাদের অস্বস্তিকর মনে হয়। আরেক জন ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থী জানায়, তিনি পূর্বে গেমস সম্পর্কে কিছু জানতেন না। এখন নিয়মিত ফ্রি ফায়ার গেমস খেলেন তিনি। মাঝে মধ্যে গেমস খেলতে না পারলে মুঠোফোন ভেঙে ফেলার ইচ্ছাও হয় তার। তিনি জানান, ফ্রি ফায়ার গেমস যে একবার খেলবে সে আর ছাড়তে পারবে না বলে দাবি তার। গেম খেলায় ফোনে মেগাবাইট কিনতে খরচ সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বলেন, এই গেম যখন বিনোদন নেওয়ার জন্য খেলতাম তখন মাসে ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মেগাবাইট খরচ হতো। মেগাবাইট ছাড়া অন্য কোনো খরচ ছিল না। ধীরে ধীরে যখন এটা ভালো লাগে তখন প্রতিটা ইভেন্টে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা খরচ না করলে যেন হয় না। গেমটিতে পুরোপুরিভাবে মনোযোগ দিয়ে যখন খেলি তখন দেখি গেমের ভেতরে এমন কিছু জিনিস আছে যেগুলো না কিনলে নয়। যেমন অলকের দাম ৪০০ টাকা, একটা জার্সি ৩০০ টাকা, নতুন ইভেন্টে আসলেই ২০০০ টাকার নিচে খরচ না করলে হয় না। সম্পূর্ণ ড্রেস কিনতে লাগে ১২০০ টাকা। সচেতন মহল বলছে  , আমাদের অবসর সময়টি বিভিন্ন খেলাধুলার মধ্য দিয়ে পার করতাম, কিন্তু এখনকার যুগে তরুণ প্রজন্মের সন্তানদের দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চিত্র। উপজেলার গ্রামগঞ্জে মোবাইল ইন্টারনেটে গ্রুপ গেম এখন মহামারি আকার ধারণ করছে। তরুণ জেনারেশন এখন ফ্রি ফায়ারের দিকে আসক্ত। যেটা কিনা একটা অনলাইন গেম সেখানে গ্রুপিংয়ের মাধ্যমে জুয়ার আসর তৈরি হচ্ছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ পেয়ে যথারীতি শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া বাদ দিয়ে অনলাইন গেমের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েছে। উঠতি বয়সের শিক্ষার্থীদের বাঁচাতে হলে অভিভাবকদের পাশাপাশি সমাজের সচেতন মহল, শিক্ষক-শিক্ষিকা, জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনকে এগিয়ে আসার আহ্বান ।
advertisement

Posted ৫:৩০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২৮ মে ২০২১

Amader Narsingdi |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

নওগাঁর সদরে ধর্ষণ মামলায় যুবক গ্রেফতার

নওগাঁ জেলার সদর থানার ডাক্তারের মোড় এলাকা থেকে… [বিস্তারিত]

লবণের সাহায্যে ডিম  ভাঙার আগেই  বুঝে নিন নষ্ট নাকি ভালো

প্রতিদিনের নাস্তায় ডিম খেয়ে থাকেন অনেকেই। কারণ সারাদিনের… [বিস্তারিত]

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল বিশ্বকাপ শুরুর আগেই পেলো দুঃসংবাদ

বিশ্বকাপ শুরুর আগেই থেকেই দুঃসময় চলছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন… [বিস্তারিত]

Contact Information
প্রধান উপদেষ্টা: আল মুজাহিদ হোসেন তুষার।
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মাকসুদুর রহমান।
প্রকাশক ও সম্পাদক: মাহবুব সৈয়দ
সহকারী সম্পাদক: রাসেল মিয়া।
প্রধান কার্যালয়
ঘোড়াশাল পোষ্ট অফিস রোড, পলাশ, নরসিংদী।
Phone: +8801912528571
Phone: +8801711900458
Email: narsingdibd24@gmail.com